সামনে ফ্রাইডে আমাদের বিয়ের ৬ মাস

0
35

সামনে ফ্রাইডে আমাদের বিয়ের ৬ মাস, পূরণ হবে ওই দিনই আমি ইরা আর আপনার ছেলের বিয়ের ব্যবস্থা করতে চাচ্ছি।আর ডিভোর্সটা ওদের বিয়ের আগে ,,,,,, না কাবিন করার পরে দিয়ে দিবো,,,,,,, কথাটা বলেই তিশা রুমে চলে যায়। শুভ মুর্তির মতো দারিয়ে পরে। ইরা ঃ শুভ,,,,,,, শুভ কিছু বলতে যাবে তার আগেই তিশা ব্যাগ নিয়ে বাসা থেকে বের হয়ে যায়। শুভ তিশার পিছে বের হয়ে যায়।

তিশা রাস্তার সাইড দিয়ে গুটিগুটি ধাপ ফেলে হেটে যাচ্ছে। শুভ ঝট করে তিশার হাত টেনে ধরে পিছে থেকে। তিশাঃ কি হলো? রাস্তার মধ্যে এভাবে হাত ধরলে কেনো? শুভঃ তুমি আমাকে ডিভোর্স দিবে? তিশাঃ হ্যা, কারন কোনো লুজার এর সাথে আমি থাকতে চাই না। দয়া করে আমার হাত ধরবেন না। আমি চাই না অন্য কারো প্রিয়ন্সি আমার হাত,,,,,।

শুভঃ চুপ একদম চুপ। একটা বাজে কথা বললে খুব খারাপ হয়ে যাবে। তিশাঃ এই জোর টা আমার সাথে না দেখিয়ে যেখানে দেখানো দরকার সেখানে দেখাও। শুভঃ ঠিক আছে,,, কথাটা বলেই এক টানে তিশাকে কোলে তুলে নিয়ে রাস্তার মধ্যে হাটতে থাকে, তিশাঃ কি হচ্ছে এটা? সবাই তাকিয়ে আছে শুভঃ তো? তিশাঃ আমাকে কোলে নিতে হলে পূর্ণ অধিকারের সাথে নিতে হবে।

আমি ৩য় ব্যক্তি হয়ে কারো জীবনে থাকতে পারবো না। শুভঃ আমি তোমাকে ভালোবাসি তিশু,,,,,, তিশাঃ ভাইয়া,,,,,,,,,,, ভাইয়া কথাটা শুনে শুভ তিশাকে নামিয়ে নেয়। শুভঃ কই ভাইয়া? তিশাঃ খুজে দেখো,,,,,,, তিশা দৌড়,,,,,, শুভঃ এই মেয়েটা এমন কেনো। যখনই বলি শুনেই না। আমি তোমাকে হারাতে পারবো না তিশু। কোনো মূল্যে আমি তোমাকে হারাতে পারবো না ,, ।

তিশা কলেজে এসে সোজা ক্লাসে চলে যায়। আজ শুভর ক্লাসে টেস্ট পরিক্ষা আছে। তিশা কারো সাথে কোনো কথা না বলে চুপ করে বসে রইলো। আবিরঃ মিষ্টি পাখি ,,,,,, তিশাঃ কেমন আছেন? আবিরঃ আমি তো ভালোই আছি। তোমাদের কি খবর? তিশাঃ কি আর? নদীর মাঝি আর নদীর স্রোত দুটোই আমার আয়ত্তে। দেখা যাক কি হয়,,, আবিরঃ আমি জানি তুমি অন্য রকম মেয়ে। তোমার জায়গায় অন্য কেউ থাকলে এতো দিনে স্যারকে ছেরে চলে আসতো।

সেল্ফ রেসপেক্ট নষ্ট করে কেউই স্যার এর কাছে পরে থাকতো না। তিশাঃ মেয়েদের বিয়ে একবারই হয়। আর পরে যেগুলো হয় তা হলো নিকাহ্, হিহিহিহিহি আর আমি নিকাহ্ করতে চাই না। কথাটা খারাপ শোনা গেলেও এটাই সত্তি। আমি চাইলেই হাজারটা ছেলের ভালোবাসা পেতে পারি। কিন্তুু আমার হাজার জন চাই না। আই নিড নো নো আই ওয়ান্ট টু শুভ এ্যাট এ্যানি কষ্ট। আমি যদি জানতাম ইরা ওকে সত্তি ভালোবাসে তাহলে আমি ওকে ছেরে চলে যেতাম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here