আমার বান্ধবীর মায়েরা ভাত মেখে

0
36

আমার বান্ধবীর মায়েরা ভাত মেখে, ওদের মুখে তুলে খাইয়ে দেন। যখন আরেকটু বড় হলাম, কি আশ্চর্য! মা আমাকে দিয়ে ঘর ঝাঁড়ু দেয়ায়,থালা বাসন মাজায়, কাপড় চোপড় ধোয়ায়। ঘর মোছায়। বান্ধবীরা বলে,তুই কি আসলেই তোর মায়ের পেটের সন্তান?নাকি তোকে পালক এনেছে? কাকীরা আমাকে দেখে আফসোস করে বলতেন, ইশ!তুই আমার মেয়ে হলে তোকে আমি পালংকে বসিয়ে রাখতাম।

আর তোর মা কিনা তোকে দিয়ে এত কাজ করায়। ধীরেধীরে মা আমাকে রান্নাবাড়া কাটাকুটিতেও ঢুকিয়ে দিলেন। স্কুলের ফাঁকেফাঁকে যেই সময় টুকু পেতাম এসব কাজ করা লাগতো আমার। মায়ের উপর প্রচন্ড রাগ হতো। বিরক্ত লাগতো মাকে। কিন্তু মা যে, তাই মুখের উপর কিছু বলতে পারতাম না। কয়েক বছর পর আজ আমি বিয়ে করে অন্য একটা পরিবারে এসেছি। আমার বরের সাথে তার বড় ভাইয়েরও বিয়ে।

একদিনে দুই ছেলের বিয়ের আয়োজন করেছেন আমার শশুড় শাশুড়ি। বিয়েটা শেষ হতে না হতেই শাশুড়ি মা আমাকে আর ভাবীকে সংসারের সব কাজ করার দায়িত্ব দিয়ে দিলেন। অথচ ভেবেছি এখানে এসে একটু অবসরে থাকবো।অন্তত ছয় মাস বছর। শাশুড়ি মা ভাগ ভাগ করে কাজ দিলেন আমাদের। আমি তাড়াতাড়ি করে আমার সব কাজ সেরে গোসল করতে চলে গেলাম।

গোসল করে এসে দেখি ভাবীর কোন কাজই এখনো হয়নি। আর তাই আমার শাশুড়ি মা তাকে গাল মন্দ করছেন আর বলছেন, বাপ মা কি শুধু বসে বসে খাইয়েছেই?কোন কাজ শিখায়নি? কথাটা ধরাম করে এসে বুকে লাগলো। এরপর থেকে শাশুড়ি মার মুখ ভাবীর উপর চলতেই থাকতো, মাছের লেজ বেছে খেতে পারেনা বলে তাকে কতই না কথা শুনতে হয়েছে।

ঘর মোছা পরিষ্কার হয়না বলে কথা শুনতে হয়েছে। রান্না পারেনা বলে কথা শুনতে হয়েছে। শুধু কি তাই,তার মাকে তুলে কথা বলেছেন আমার শাশুড়ি। (যদিও এটা একদমই ঠিক নয়। কারণ বাবার বাড়ী থেকে হাতে গুনা কয়েক জন ছাড়া কেউই সব কাজ শিখে আসেনা।অবশ্যই তাদের শিখিয়ে নিতে হবে,মায়ের মত আদর এবং শাসনের সাথে,বকা বাজি করে নয়) এদিকে আমার উপর আমার শাশুড়ি একটা টু শব্দও করেন না।করবে কি করে,।

আমি যে সব কাজই সুন্দর ভাবে পারি এবং করি। আজ মাকে দেখার জন্য মনটা ছটফট করছে।তাই দৌড়ে মায়ের কাছে চলে এলাম। বিয়ের পর মায়ের সাথে এই প্রথম দেখা করতে এলাম। তার উপর রাগ এবং বিরক্তি থাকার ফলে আসিনি এত দিন।ভাবতাম বিয়ে হয়ে পরের বাড়ী চলে গেলেই বাঁচি।এই বাড়ীতে আর পা ই রাখবোনা,যেখানে নিজের মা ই পরের মত আচরণ করে। আজ আমার কোন রাগ নেই,নেই মায়ের উপর কোন বিরক্তি।কারণ আমি বুঝে গেছি,আমার মা আমার সব সময় ভালো চেয়েছেন। মাকে এসে জড়িয়ে ধরে কাঁদতে লাগলাম। আমার মাও আমাকে ধরে কাঁদতে লাগলেন। আর জিজ্ঞেস করতে লাগলেন, -কি হয়েছে রে মা?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here